হবিগঞ্জে শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা

368

হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে এক যুবক। গ্রেফতারের পর আদালতে দোষ স্বীকার করেছে ঘাতক যুবক। গতকাল সোমবার বিকেলে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় ঘাতক রিংকু সরকার । বানিয়াচং উপজেলার ছিলারাই গ্রামের হগেন্দ্র সরকারের ছেলে সে। নিহত সুবর্ণ সরকার একই গ্রামের প্রভাত সরকারের মেয়ে ও ছিলারাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী। নৃশংস এই হত্যাকান্ডের পর নিহতের পরিবার এবং তার সহপাঠীসহ এলাকাবাসীর মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ এমরান হোসেন জানান, গত শুক্রবার রাত আটটায় খেলাধূলার কথা বলে বাড়ির পূর্বপাশে ধানের খলায় নিয়ে সুবর্ণাকে ধর্ষণ করে রিংকু। পরবর্তীতে শ্বাসরুদ্ধকরে

হত্যার পর একটি ডুবায় মরদেহে ফেলে রেখে চলে যায় সে। এরপর গত রবিবার পর্যন্ত দু’দিন মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েন পরিবারের সদস্যরা। ওইদিনই রিংকুর অসঙ্গতিপূর্ণ আচরণে সন্দেহ হয় প্রতিবেশীদের। এক পর্যায়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সহযোগিতায় তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। ওইদিন রাতেই ঘাতকের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ডুবা থেকে সুবর্ণার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে সোমবার নিহতের বাবা বাদী হয়ে ঘাতকের বিরুদ্ধে বানিয়াচং থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওসি আরো জানান, আদালতে দোষ স্বীকারের পর রিংকুকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় আরো তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।
এদিকে কোমলমতি ওই শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় স্থানীয় অভিভাবকদের মাঝে উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। শোকের ছায়া নেমে এসেছে নিহতের পরিবার ও তার সহপাঠী এবং স্থানীয়দের মাঝে। হত্যাকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তারা।