চান্দিনা উপজেলা সদরে সুনসান নিরবতা

506
চান্দিনা উপজেলা সদরে সুনসান নিরবতা
চান্দিনা উপজেলা সদরে সুনসান নিরবতা

চান্দিনা উপজেলা সদরে সুনসান বিরাজমান ‘রেড জোন ঘোষণার পর থেকে। মোট ৯জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর প্রশাসনের কঠোর নজরদারি রয়েছে। উপজেলা সদরের প্রায় সকল দোকান-পাট বন্ধ হয়ে গিয়েছে। জরুরী ওষুধ দোকান ও ডাক্তারদের চেম্বারগুলোই খোলা রয়েছে। উপজেলা সদরে পুলিশ-সেনাবাহনীর যৌথ সহযোগিতায় ম্যাজিস্ট্রেটের ধারাবাহিক অভিযানে উপজেলা সদর নিশ্চুপ হয়ে পড়েছে।

চান্দিনা বাজারটি পার্শ্ববর্তী দেবীদ্বার উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় হওয়ায় দুই উপজেলার ক্রেতা-বিক্রেতাদের সমাগমে থাকতো। কিন্তু গত ৩ মে চান্দিনা বাজার সহ পাশ্ববর্তী ধানসিঁড়ি ও মহারং এলাকাকে ‘হটস্পট’ হিসেবে ঘোষণার পর বাজারের সকল দোকান-পাট বন্ধ করে দেয় উপজেলা প্রশাসন। পুলিশ-সেনা বাহিনীর যৌথ সহযোগিতায় চলে ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান। প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখে জনসমাগম করার অপরাধে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযানে ৭টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করেছে।

এব্যাপরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) স্নেহাশীষ দাশ জানান- চান্দিনায় যে ক’জন রোগীর শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে তাদের অধিকাংশের বসবাস উপজেলা সদরে। বিশেষ করে মহারং, ধানসিঁড়ি আবাসিক এলাকায়। এছাড়া দেবীদ্বার উপজেলার বাগুর ও নবীয়াবাদে আশঙ্কা জনক হারে বেড়েছে করোনা শনাক্ত রোগী। আর ওই এলাকার মানুষের সার্বক্ষণিক যাতায়াত চান্দিনা বাজারে। সব কিছু বিবেচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।