হবিগঞ্জের মধ্যবিত্তদের খোঁজ খবর রাখতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

করোনাভাইরাসের কারণে মধ্যবিত্ত পরিবারের পাশে দাড়ানোর জন্য হবিগঞ্জের জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল মঙ্গলবার হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে এ আহবান জানান। পাশাপাশি করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন- কর্মহীন দরিদ্র মানুষরা ত্রাণ পাচ্ছেন। কিন্তু কিছু পরিবার আছেন যাদের ঘরে খাবার না থাকলেও হাত পাততে পারেন না। তাদের দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। তাদের খোজ খবর রাখতে হবে।

তিনি বলেন- বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় আমাদের একটি করে দূর্যোগ মোকাবেলা কমিটি আছে। আমি চাচ্ছি জনপ্রতিনিধিসহ সকলকে নিয়ে আরও একটি কমিটি গঠন করতে। কমিটির কাজ হবে- সমাজের যারা হাত পেতে চাইতে পারবেন না তাদের খোঁজ রাখা। এছাড়া সরকারি ত্রাণ সঠিকভাবে বিতরণ হচ্ছে কি-না তার যাচাই-বাচাই করা।

হবিগঞ্জ প্রশাসনের উদ্দেশ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন- হবিগঞ্জ জেলা যেহেতু বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত রয়েছে, তাই এ জেলা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। সেজন্য দায়িত্বপ্রাপ্তদের যথাযথ গুরুত্ব সহকারে কাজ করতে হবে।

এ সময় হবিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এডভোকেট মো. আবু জাহির প্রধানমন্ত্রীকে বলেন- হবিগঞ্জ জেলা একটি খাদ্য উদ্ধৃত জেলা। সুতরাং করোনা পরবর্তীতে আমরা আপনাকে যতেষ্ট পরিমাণে সহযোগিতা করতে পারব। এমপি আবু জাহিরের এমন প্রতিশ্রুতিতে অনেক খুশি হন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এমপি আবু জাহির দাবি করে বলেন- ১০ টাকা কেজি চাল শুধুমাত্র পৌরসভায় চালু করেছেন। এই কার্যক্রমটি যদি প্রতিটি ইউনিয়নে চালু করেন তাহলে আমাদের অনেক ভালো হয়। এ সময় এমপি আবু জাহিরের প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী সহমত প্রকাশ করেন এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি শুরু করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন।

পাশাপাশি জেলা প্রশাসকের কাছে মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর তালিকা তৈরী করে কার্ডের ব্যবস্থা করার জন্য আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় জেলা প্রশাসক মো. কামরুল হাসান বলেন- আমাদের হট লাইনে অনেকে ফোন করে ত্রাণের কথা জানান। কল পাওয়ার সাথে সাথেই উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাসহ আমি নিজেও ত্রাণ নিয়ে বাড়িতে পৌঁছে যায়।