তুলসী পাতার ঔষধি গুনাগুন, বন্য ওষুধের মধ্যে তুলসী সর্বোৎকৃষ্ট বলে স্বীকার হয়েছে।

তুলসী পাতার উপকারিতা
তুলসী পাতার উপকারিতা

আয়ুর্বেদিক মতে তুলসী পাতা বিভিন্ন ব্যাধি ভালো করে….

তুলসী পাতার ঔষধি গুনাগুন:

তুলসী একটি ঔষধি গাছ যা আমাদের সকলের কাছেই পরিচিত। এই গাছের পাতায় অনেক রোগ নিরাময়ের উপকারী গুণ রয়েছে, প্রতিদিন এক গ্লাস তুলসী পাতার রস বা চা পান করা কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমায়। এবং যদি কিডনিতে পাথর জমে থাকে, তবে আপনি যদি 6 মাস ধরে তুলসী পাতার রস পান করেন তবে পাথর গলে যায় এবং প্রস্রাবের সাথে বেরিয়ে আসে।

তুলসী পাতাও সর্দি, কাশি, কৃমি, মূত্রথলির জ্বালা, হজম এবং কফকে হ্রাস করে। এটি ক্ষত নিরাময়ে এন্টিসেপটিক হিসাবেও কাজ করে। তুলসীর সাথে চা এবং মিশ্রণের কিছু উপায় এখানে রইল:

তুলসী জল:

উপকরণ: দুই কাপ জল এবং কয়েকটি পাতা।

প্রস্তুতি: একটি পাত্রে দুই কাপ জল নিন। এর সাথে কয়েকটি তুলসী পাতা সিদ্ধ করুন। এটি ফুটে উঠলে আপনি এটি পান করতে পারেন। এই মিশ্রণটি গলা এবং হুপিং কাশি থেকে মুক্তি দেয়। তুলসী-চৌপ্পরণ: ১০-১৫ তুলসী পাতা, গুড়, জল এবং লেবুর রস।

প্রস্তুতি: প্রথমে গুড় এবং তুলসী পাতা নিন। দেড় কাপ জল এবং এক চা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে চুলায় রাখুন। মিশ্রণটি ফুটে উঠলে নামিয়ে ফেলুন। এই চা পান করলে আপনার শরীর গরম থাকবে। ভেষজ তুলসী-চা

উপকরণ: এক টুকরো আদা, কালো মরিচ, লবঙ্গ, তুলসী, দারচিনি, এলাচ।

প্রস্তুতি: পর্যাপ্ত পরিমাণ পানিতে উপরের উপাদানগুলি মিশিয়ে জ্বালানি যুক্ত করুন। ১০ মিনিটের পরে, আপনি এটি নামিয়ে তা পান করতে পারেন।

এই ভেষজ তুলসী চা আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং আপনাকে ডেঙ্গু এবং ম্যালেরিয়া থেকে রক্ষা করে।

ভেষজ রস উপাদান: সেলারি, তুলসী, জিরা, আমচুর গুঁড়ো, লবণ এবং পুদিনা পাতা। প্রস্তুতি: উপরের উপাদানগুলি চার কাপ পানিতে মিশিয়ে ১০-১৫ মিনিট ধরে রান্না করুন। তারপরে পান করুন। প্রতিদিন এই রসটি পান হজমশক্তি বাড়িয়ে তোলে এবং পানিশূন্যতা থেকে রক্ষা করবে।