তাড়াতাড়ি ইফতার করার ফজিলত

আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কালামে পাকে বলেন, ‘‘অত:পর রাত পর্যন্ত সিয়াম পুর্ন কর।’’ উক্ত আয়াতের ব্যাখ্যা স্বরুপ 
হযরত সাহাল ইবনে বিনে সায়াদ থেকে বর্নিত, আল্লাহর রাসুল (সাঃ) ফরমান, ‘‘লোকেরা কল্যাণ থেকে মাহরুম হবেনা, যতক্ষন তারা দ্রুত ইফতার করবে।’’ অন্য হাদিসে মহানবী (সাঃ) বলেন, ‘‘লোকেরা কল্যানে অবস্থান করবে, তারা দ্রুত ইফতার করবে। তোমরা দ্রুত ইফতার কর। কারণ ইয়াহুদিরা বিলম্ব করে।’’  
আরেক হাদিসে রাসুল (সাঃ) ফরমান ,‘‘দ্বীন বিজয়ী থাকবে, যতদিন মানুষেরা দ্রুত ইফতার করবে, নিশ্চয় ইয়াহুদি ও নাসারারা ইফতারে বিলম্ব করে।’’ 
এমনিভাবে মহানবী (সাঃ) আরেক হাদিসে ফরমান, ‘‘আমার উম্মতরা সুন্নাতের উপর প্রতিষ্ঠিত থাকবে, যতক্ষন তারা ইফতারের জন্য নক্ষত্রের অপেক্ষা না করবে। ’’ 
আবুল হাতিয়া হামদানি (র) বলেন, আমি ও মাশরুক হযরত আয়েশা (রাঃ) এর নিকট গিয়ে জিজ্ঞাসা করি, হে উম্মুল মু’মেনীন, রাসুলের দুজন সাহাবী একজন দ্রুত ইফতার ও দ্রুত সালাত আদায় করেন, অপরজন দেরীতে ইফতার ও সালাত আদায় করেন। তিনি বললেন, কে দ্রুত ইফতার করে ও দ্রুত সালাত আদায় করে? আমরা বললাম আব্দুল্লাহ অর্থাৎ আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা), তিনি  বলেন , নবী (সাঃ) এরুপ করতেন। 
অতএব আমরা ইফতারের অজুহাত দেখিয়ে নামাজ যাতে ক্বাজা না হয় সেদিকে খেয়াল রাখব।